জেব্রা!

জেব্রা!

বাংলার প্রান্তরে হঠাৎ আফ্রিকার সাভানার রোদ ঝলসে ওঠে। তুমিই কি? থেকে থেকে লাফিয়ে উঠতে চাও কোলে। আমি স্তম্ভিত। এই তুমি! বন্য ও উদ্দাম! এবং উৎকর্ণ। চাবুকের শব্দ সপাং সপ। বাতাস হচ্ছে রক্তাক্ত। তোমার ভীতিগুলোই কালো…
দরজা

দরজা

তাহলে দরজারই সমুখে! সেই দরজা! তোমার দরজা! একদিন যে-দরজা ছিল গরমের খরতাপে বন্ধ ও রঙচটা! কত সড়কেই না আমি সন্ধান করেছি এমন একটি দরজা যার পাল্লার কাঠে এসে পড়বে শ্রাবণ-বৃষ্টির সন্তাপহর ধারা। কিন্তু বিবর্ণ এই…
নিঃসঙ্গ কবি, নির্জন রেস্তোরাঁ

নিঃসঙ্গ কবি, নির্জন রেস্তোরাঁ

মাথার ভেতরে লেখা। অদূরে রেস্তোরাঁ। আষাঢ় সেজেছে খুব মেঘে মেঘে-মনে সে করাবে বিরহ বিপন্ন দিন-রাস্তাঘাট আদ্যোপান্ত খোঁড়া। মাটির পাহাড়গুলো কতদিনে কে জানে সরাবে! এরই মধ্যে পথ করে নিতে হবে আজ। অপেক্ষায় কবিতা ও কফি। হঠাৎ…
বৃত্র-সংহার (মহাকাব্য)

বৃত্র-সংহার (মহাকাব্য)

বৃত্র-সংহার : প্রথম খণ্ড – প্রথম সর্গ বসিয়া পাতালপুরে ক্ষুব্ধ দেবগণ,- নিস্তব্ধ, বিমর্ষভাব, চিন্তিত, আকুল, নিবিড় ধূমান্ধ ঘোর পুরী সে পাতাল, নিবিড় মেঘডম্বরে যথা অমানিশি। যোজন সহস্র কোটি পরিধি বিস্তার– বিস্তৃত সে রসাতল, বিধূনিত সদা…
যা লাগবে বলবেন

যা লাগবে বলবেন

কে চেল্লায় শালা কে চেল্লায় এত ভোরবেলা ? গু-পরিষ্কার করেনি কাকেরা মাছের বাজার থেকে ফেরেনি সবুজ মাছরাঙা বকজোড়া আপিস যায়নি এখুনও ! কে চেল্লায় কে চেল্লায়, অ্যাঁ, কিসেরি-বা রেলা ? আমি, আমি, হাহ আমিই আওয়াজ…
আত্মধ্বংসের সহস্রাব্দ

আত্মধ্বংসের সহস্রাব্দ

আমি ভঙ্গুর হে আমি যে-নাকি গাইডের কাছে ইতিহাস-শেখা ফোস্কাপড়া পর্যটক ছায়ায় হেলান-দেয়া বাতিস্তম্ভের আদলে গিসলুম পিতৃত্ব ফলাবার ইসকুলে জানতুম যতই যাই হোক ল্যাজটাই কুকুরকে নাড়ায় রে আমি যে-নাকি প্ল্যাটফর্মে ভবিষ্যভীতু কনের টাকলামাথা দোজবর বস্তাপ্রতিম বানিয়ার…
মেধার বাতানুকূল ঘুঙুর

মেধার বাতানুকূল ঘুঙুর

অস্তিত্ব ভোর রাতে দরোজায় গ্রেপ্তারের টোকা পড়ে একটা কয়েদি মারা গেছে তার স্হান নিতে হবে জামাটা গলিয়ে নেবো ? দুমুঠো কি খেয়ে নেবো ? পিছনের ছাদ দিয়ে পালাবো কি ? কপাট ভাঙার শব্দে খসে পড়ে…
পোস্টমডার্ন আহ্লাদের কবিতা

পোস্টমডার্ন আহ্লাদের কবিতা

দুটি বিশ্ব আমরা তো জানি রে আমরা সেরে ওঠার অযোগ্য তাই বলে বৃষ্টির প্রতিধ্বনিতে ভেজা তোদের কুচুটে ফুসফুসে গোলাপি বর্ষাতি গায়ে কুঁজো ভেটকির ঝাঁক সাঁতরাবে কেন তোদের নাকি ধমনীতে ছিল ছাইমাখা পায়রাদের একভাষী উড়াল শুনেছি…
কৌণপের লুচিমাংস

কৌণপের লুচিমাংস

অভ্রপুষ্প মোচড়খোলা আলোয় আকাশকে এক জায়গায় জড়ো করে ফড়িং-ফোসলানো মুসুরিখেতে বক্তৃতা দিচ্ছিলেন বোলডার-নিতম্ব কবি মরাবাতাসের বদবুমাখা কন্ঠস্বরে ঝরছিল বঁড়শিকেঁচোর কয়েলখোলা গান থেকে এক-সিটিঙে সূর্যের যতখানি রোজগার শেষ হয়ে যায় মধু দিয়ে সেলাইকরা মৌচাকে মোতায়েন জেড…