অবুঝ ভালোবাসা

অবুঝ ভালোবাসা

২০১১ সাল তখন ক্লাস নাইনে পড়ি,
সবে মাত্র গোঁফের রেখা স্পষ্ট হতে শুরু করেছে ।
সারাদিন স্কুল আর বন্ধুদের সহিত আড্ডা দেওয়াই ছিল দৈনন্দিন রুটিন ।

ভালবাসা কি সেটা নিয়ে তেমন কিউরিসিটি ছিল না!
বন্ধুদের অনেকেই দেখতাম প্রেম করে,
হাত কাটে, চিরকুট লিখে, ফোনে কথা বলে ইত্যাদি!

সেদিন ছিল বুধবার (৭/১০/২০১১) তাকে আমি প্রথম দেখি আমাদের ক্লাসের সামনে নিম গাছে হেলান দিয়ে দাড়িয়ে আছে আর কার সাথে যেন কথা বলতেছে আর হাসতেছে !

আমি লক্ষ করলাম হাসলে ওর বাম গালে অনেক সুন্দর একটা টোল পরে। যা আমাকে ঐ দিন বেশি মুগ্ধ করেছিল।

তারপর থেকে যতই দিন যেতে থাকল আমার ততই মেয়েটিকে ভাল লাগতে থাকে! কথাটা আমি আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু বিলাস কে জানাই,

বিলাস হয়তো ক্লাসের কারো সাথে কথাটা শেয়ার করে আর পরে, বিশেষ করে আমার আল-আমিন চাচার গার্লেফ্রন্ড অর্থাৎ যাকে আমি স্যার -ম্যাডামদের সামনেই চাচি ডাকতাম!

উনি আমাকে বলতেছে যে “পছন্দ করো বল না কেন?”
আমি বললাম কেমন করে বলব ? মেয়ে ক্লাস সিক্সে পড়ে যদি স্যারের কাছে বিচার দেয়! এটা এমনিতেই বললাম।

আসলে সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে স্যারের কাছে বিচার দিলেও স্যার আমাকে কিছু করবে না (কারন তখন আমরাই ছিলাম স্কুলের মাথা যা বলতাম তাই করতাম)

যাই হোক , পরের দিন চাচি আমাকে বলল আজকে মেয়েকে তোমার কিছু বলতেই হবে । আমি কিছুক্ষণ ইতস্তত করে পরে বললাম আচ্ছা বলব ।

চাচি মেয়েকে আমাদের ক্লাসরুমের দক্ষিনের জানালায় এনে দাঁড় করালো । আর বলল নীল তোমায় কিছু বলতে চায় ।
আর চাচি বলল এবার বলো আমি পাশেই আছি ।

কি বলব বুঝেছিলাম না ।।
ঐ দিকে মেয়েটা বার বার জিজ্ঞাসা করছে কি বলবেন বলেন ??

-না মানে …..(আমি)
-কি না মানে ?(মেয়ে )
-না মানে বলছিলাম কি ….
-কি এত না মানে করছেন ? বলেন কি বলবেন ?
-আসলে হয়েছে কি ! কালকে বলি ?
-না আজকেই বলেন , না হলে আমি গেলাম !
-এই শুনো ,
-আমি না তোমাকে খুব পছন্দ করি ! একদমে চোখ বন্ধ করে বলে ফেললাম ।
বলেই সেখান থেকে চলে আসলাম ।

কিছুদিন পর …..

-এইযে শুনছেন ?(মেয়ে )
তাকিয়ে দেখি ঐ মেয়েটি ,
-আপনি তো অনেক সুন্দর গান করেন !
-আমি সুন্দর গান করি কে বলছে তোমায় ?(আমি)
-কেউ বলেনি , আমি দেখছি ঐযে সেদিন স্যারের সাথে আপনাদের ক্লাসে গানের প্রেকটিস করছিলেন ।
-ওহ্
-আচ্ছা সেদিন জানি কি বলছিলেন ?
-কি বলছিলাম শুনতে পাওনি ?
-হ্যাঁ শুনেছি তো !
-তো উত্তর টা কি ?
জবাবে কিছু বলছে না মাথা নিচু করে আছে ! হয়তো লজ্জা পেয়েছে ।
-কি হল ? কিছু বলো !
-কি বলব ?
-ভালবাসি তোমায় ! এইটা বলো ।
-না পারব না।
-না বলতে হবে।
মেয়েটি দৌড়ে চলে গেল !

বহু কষ্টে মেয়ের ফুফুর ফোন নাম্বার জোগাড় করলাম !
কিন্তু এখন ফোন করব কি দিয়ে ?? আমার তো ফোন নেই আর বাসার ফোন দিয়ে কথা বলা যাবে না ।
কয়েকদিন পর সে আমাকে পছন্দ করে বলছে । কিন্তু কথা খুব কম হতো ওর সাথে কারন এই স্কুলেই তার খালাত বোন পড়ত।

তারপর একটা ফোন কিনলাম ! শুধু ওর সাথে কথা বলার জন্য ।

সম্পর্কটা বেশ ভালই ছিল ।
কিন্তু ফোনেও কথা বলা সমস্যা !
ওর সাথে প্রথম আমার ফোনে কথা হয়েছিল ৩৭
সেকেন্ড ।
পরে আর একদিন ৫৩ সেকেন্ড ।
এই দুইদিন ।
প্রতিদিন স্কুল ছুটির পর তাকে বলে আসতাম ”যাচ্ছি” !!
সেও আমাকে বলেই যেত !

এইভাবেই আমি ক্লাস টেনে উঠলাম ।
কিন্তু হঠাৎ কি জানি হলো সে বলল আমার সাথে সম্পর্ক রাখবে না ।

আমি স্কুলের পিছনে গিয়ে খুব কেঁদেছিলাম !
বিলাস আমাকে ওদের ক্লাসে গিয়ে তাকে অনেক বুঝাইছে কিন্তু লাভ হয়নি ।।

ও আমাকে ডিরেক্ট বলে দিছে আমার সাথে কোন সম্পর্ক রাখতে চায় না !!
কিন্তু কেন তা আমি আজও জানি না ।।

আমি বার বার জিজ্ঞাসা করেছিলাম কেন সম্পর্ক রাখতে চাওনা ?
সে আমাকে কিছু বলে নি ।।
আমার মতো আরো অনেকেই এই প্রশ্নটাই করে থাকেন,,
কেন ছেড়ে গেলে ?? আমার কি দোষ ছিল ??

যারা চলে যায় তারা একটা কথাই বলে যায় ”আমি জানি না”
কেন এই কথা বলে তারাই জানে! আর উপরওয়ালাই জানে।।।।

[গল্পটি ইন্টারনেট হতে সংগ্রহিত]

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত